স্বাধীনতা উদযাপনে বর্ণিল সাজে সেজেছে স্মৃতিসৌধ

2 months ago 36

রাত পেরোলেই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে পদার্পণ করবে স্বাধীন বাংলাদেশ। রাতের ঘনকালো আঁধার কেটে প্রথম প্রহরে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের বিনম্র শ্রদ্ধা জানাবেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। 

এরপর বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষের ঢল নামবে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে। যে যার মতো ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে সিক্ত করবে সৌধ বেদি।

প্রায় এক মাস ধরে চলা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ ইতোমধ্যে সমাপ্তের কথা জানিয়েছে স্মৃতিসৌধ কর্তৃপক্ষ। 

সৌধ এলাকার প্রধান ফটক ও দেয়াল জুড়ে শোভা পেয়েছে লাল, নীল, কমলা, বেগুনীসহ নানা রঙের আলোকসজ্জা। সৌধের ভিতরে শোভাবর্ধনকারী গাছপালা গুলোও সাজানো হয়েছে বর্ণিল এসব আলোকবাতিতে।

সব মিলিয়ে এবার সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাতের আকাশেও স্বাধীনতার সুর বাঁজতে শুরু করেছে। আঁধার রাতে কৃত্রিম আলোকসজ্জা যেন সৌধ এলাকায় এনে দিয়েছে ভিন্ন এক রূপ। রঙিন আলোকবাতির ঝলকানি নজর কাড়ছে সবার।

সাভার গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে প্রতি বছরের ন্যায় এবারো পুরো সৌধ এলাকায় বর্ণিল আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নানা রঙের আলোর ঝলকানিতে সন্ধ্যার পরেই সৌধ জেগে ওঠে বিজয়ের ধ্বনিতে।

নিরাপত্তার বিষয়ে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার জানান, স্বাধীনতা দিবসে সর্বসাধারণের নিরাপত্তার জন্য কয়েক স্তরের বলয় গড়ে তোলা হয়েছে। পাশাপাশি সৌধ প্রাঙ্গণসহ আশপাশের এলাকায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়ে সার্বক্ষণিক নজরদারি করা হচ্ছে। প্রতিটি পয়েন্টে পয়েন্টে অস্থায়ী চেকপোস্ট তৈরি করা হয়েছে।

সাভার গণপূর্ত বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে ১৭ মার্চ থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। এদিন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহ স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। পরবর্তীতে ১৯ মার্চ শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসে, ২২ মার্চ নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভান্ডারি ও ২৪ মার্চ ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং জাতীয় স্মৃতিসৌধ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

Read Entire Article