‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী দেখতে পেরে নিজেকে ধন‌্য মনে করছি’ 

1 month ago 15

‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী— খুবই আনন্দের ব‌্যাপার! আমি দিনটি দেখে যেতে পারলাম, এজন‌্য নিজেকে ধন‌্য মনে করছি। আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখেছি, স্বাধীনতা দেখেছি, এবার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী দেখছি। সত‌্যি এটি ভীষণ আনন্দের!’— রাইজিংবিডির সঙ্গে আলাপকালে আপ্লুত কণ্ঠে কথাগুলো বলেন বরেণ‌্য অভিনেতা আবুল হায়াত।

জাতীয় ইতিহাসের শ্রেষ্ঠতম অধ্যায় ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ। এর মধ্য দিয়ে জন্মলাভ করে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর পেরিয়ে গেছে দীর্ঘ সময়। বাংলাদেশের শিক্ষা, চিকিৎসা, অর্থনীতিতে এসেছে দৃষ্টিগ্রাহ্য পরিবর্তন। প্রাপ্তির ঝুলিতে জমা হয়েছে আমাদের অনেক অর্জন। 

বিষয়টি স্মরণ করে আবুল হায়াত বলেন, ‘গত ৫০ বছরে আমরা দেশকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে এসেছি। দেশ নিয়ে বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা পুরোপুরি এখনো পূরণ হয়নি। কারণ মাঝে নানা বাধাবিপত্তি এসেছে। তারপরও সবকিছু পেছনে ফেলে আমরা বর্তমান অবস্থানে এসেছি। আমি আশাবাদী ভবিষ‌্যতে নিশ্চয়ই আমরা আরো সফল হবো।’ 

প্রায় ৬৭ বছর আগে মহল্লার মঞ্চে উঠে নাটকে মনপ্রাণ সপে দিয়েছিলেন এই অভিনেতা। সেই থেকে অভিনয়জীবনের শুরু। মঞ্চ, টেলিভিশন, সিনেমা- সব জায়গাতেই সমান সফল তিনি। স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার চর্চা এবং তারও অনেক পরে টিভি নাটক ও চলচ্চিত্রে দাপিয়ে বেড়ানো আবুল হায়াতের বয়স এখন ৭৭ বছর। এখনো অভিনয়ের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন।  

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দেশের নাট্যচর্চা প্রসঙ্গে এই অভিনেতা বলেন, ‘নাটক, চলচ্চিত্রে আমরা উন্নতি করেছি- সন্দেহ নেই। তবে নাটক, চলচ্চিত্রে উন্নতি যেভাবে শুরু হয়েছিল, সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। কারণ মাঝে হঠাৎ সব কিছু থমকে গিয়েছে। এখন নতুন প্রযুক্তি এসেছে, সময়ের সঙ্গে আরো পরিবর্তন আসছে। নতুন প্রযুক্তি ব‌্যবহার করে নানারকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে। এর মাঝে নানারকম সাইড এনিমেশন ঢুকে গেছে, যে কারণে মান অনেক সময় পড়ে যাচ্ছে। তারপরও আমি বলব, আমাদের অনেক নতুন নির্মাতা এসেছেন। তারা ভালো কাজ করছেন। তবে যেভাবে শুরুটা হয়েছিল, যতটা আশা করেছিলাম, সেভাবে উন্নতি হয়নি।’ 

Read Entire Article