স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেয়ার নামে হাতিয়ে নিতেন টাকা

2 months ago 48

কখনো স্বনামধন্য গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান, কখনো পরিচালক, আবার কখনো সচিব পরিচয়ে মানুষকে দেখাতেন চাকরির প্রলোভন, হাতিয়ে নিতেন লাখ টাকা। তবে এবার আর শেষ রক্ষা হয়নি তাদের। অভিযান চালিয়ে সংঘবদ্ধ চক্রটির দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিট।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মো. হানিফ মিয়া ওরফে ডিপজল ও মো. শামসুল আলম। বৃহস্পতিবার ভোরে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

জানা গেছে, একটি সিমেন্ট কোম্পানির উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তাকে মোবাইলে এস আলম গ্রুপের পরিচালক পরিচয়ে চাকরির প্রলোভন দেখায় চক্রটি। এক পর্যায়ে তাকে এস আলম গ্রুপের জেনারেল ম্যানেজার পদে চাকরির প্রস্তাব দেন তারা। প্রস্তাবে সাড়া দিলে ঢাকায় ইন্টারভিউ দিতে হবে বলে জানান।

কিছুদিন পর উড়োজাহাজে ঢাকায় আসতে এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যানের মেয়ে, জামাইসহ চারজনের টিকিটের টাকার জন্য একটি বিকাশ নাম্বার দেন। এরপর জেনারেল ম্যানেজারের জন্য নির্ধারিত গাড়ি বন্দরে আছে- সেই গাড়ি ছাড়াতে টাকা বিকাশ করতে বলেন। বিমান টিকিট ও গাড়ি ছাড়ানো বাবদ ৮০ হাজার ৭০০ টাকা হাতিয়ে নেন প্রতারকরা। বিষয়টি বুঝতে পেরে ২৩ মার্চ কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী।

সিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের এডিসি আসিফ মহিউদ্দীন বলেন, দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান, পরিচালক, সচিবসহ বিভিন্ন পরিচয়ে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে দুই প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে মো. হানিফ মিয়া ওরফে ডিপজল বেঙ্গল গ্রুপের পরিচালক পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিলেন।  

তিনি আরো বলেন, গ্রেফতারকৃতরা ভালো বেতনের চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে মানুষের কাছ থেকে কৌশলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তাদের কাছ থেকে প্রতারণায় ব্যবহৃত মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলমান।

Read Entire Article