সবুজের মাঝে ভাটা, চিন্তিত কৃষকরা

2 weeks ago 11

সবুজের মাঝেই দাঁড়িয়ে আছে ইটভাটা

সবুজের মাঝেই দাঁড়িয়ে আছে ইটভাটা

পিচঢালা সড়কের পাশেই এক চিলতে সবুজের ছোঁয়া। লাগানো হয়েছে ধানের চারা। ঠিক সবুজের মাঝেই দাঁড়িয়ে আছে একটি ইটভাটা। আর.বি.সি নামের এ ইটভাটা কেড়ে নিয়েছে কৃষকদের ঘুম। ফেলেছে হতাশায়।

ইটভাটাটি গড়ে তোলা হয়েছে গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের পূর্ব দামোদরপুর হিন্দুপাড়া এলাকায়। আবাদি জমি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও জনবসতি এলাকার এক কিলোমিটার দূরে ভাটা করার কথা থাকলেও আর.বি.সি ইটভাটাটি মানেনি কোনো নিয়ম। তবে ভাটাটির কাজ এখনো চলছে।

এ ইটভাটার কাজ বন্ধে এলাকাবাসী বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ এমনকি সড়ক অবরোধের মতো আন্দোলন করেও কোনো সুফল পায়নি।

জানা গেছে, পূর্ব দামোদরপুর হিন্দুপাড়া এলাকায় সড়কের পাশে উর্বর জমিতে ২০১৯ সালে ইটভাটা নির্মাণ শুরু করেন সুন্দরগঞ্জের ধোপাডাঙ্গার গোলাম মোস্তফা সাদা মিয়া। তবে এলাকাবাসীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কিছুদিন কাজ বন্ধ রাখা হয়। এরপর কাজ শুরু করলে চলতি বছর আবারো দুই দফায় অভিযোগ করা হয়। কিন্তু কাজ বন্ধ করা হয়নি। পরে সড়ক অবরোধ করে বন্ধের দাবি জানান স্থানীয় কৃষকরা।

ইটভাটার আশপাশে কৃষকদের আবাদি জমি রয়েছে

এরপর ইটভাটাটি নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দেয় প্রশাসন। কিন্তু তিনদিন পর আবারো কাজ শুরু হয়। এখন কাজ প্রায় শেষের দিকে। যেকোনো দিন ভাটায় পোড়ানো হবে ইট। 

এলাকার ক্ষুদ্র কৃষক কবেজ উদ্দিন জানান, ইটভাটার আশপাশে কৃষকদের আবাদি জমি রয়েছে। এসব জমিতে চাষ করে তাদের জীবন চলে। ভাটাটি চালু হলে তাদের ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হবে। এতে পরিবার-পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে দিনাতিপাত করতে হবে।

আরেক কৃষক মো. নূর আলম বলেন, ইটভাটার আশপাশের জমির মালিকদের জমি বিক্রি করতে বিভিন্নভাবে চাপ দেয়া হচ্ছে। ইটভাটা স্থাপনের বিরোধিতা ও অভিযোগ করায় দরিদ্র মানুষদের চাঁদাবাজির মামলায় জড়ানোসহ নানা ধরনের হুমকিও দেয়া হচ্ছে।

এলাকাবাসী ও কৃষকদের স্বাক্ষর সম্বলিত একটি অভিযোগপত্র গাইবান্ধার ডিসি বরাবর দেয়া হয়েছে। এতে উল্লেখ করা হয়, ইটভাটার কারণে এলাকার জমি, ফসল ও গাছপালা নষ্ট হবে। এছাড়া ভাটার মাটি, বালু, কয়লা, ইট পরিবহনের ব্যবহৃত যানবাহন চলাচলের কারণে বায়ু ও শব্দ দূষণে পরিবেশ নষ্ট হবে। নানা ব্যাধিতে আক্রান্ত হবে মানুষ।

ডিসি কার্যালয় সূত্র জানায়, এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে আবাদি জমিতে ইটভাটা নির্মাণের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ পাওয়া যায়। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

সাদুল্লাপুরের ইউএনও মো. নবী নেওয়াজ বলেন, জেলা প্রশাসনের নির্দেশে ভাটার কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এরপরও কাজ করলে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হবে।

View Source