রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন

1 month ago 14

ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে। শুক্রবার দিবসের প্রথম প্রহরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা ও চৌধুরী জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আবদুস সালাম, প্রক্টর ও ভারপ্রাপ্ত ছাত্র-উপদেষ্টা অধ্যাপক লুৎফর রহমান, জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক ড. মো. আজিজুর রহমান, অনুষদ অধিকর্তা, বিভাগীয় সভাপতি, হলসমূহের প্রাধ্যক্ষগণ উপস্থিত ছিলেন। সেখানে তারা অমর শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতাও পালন করেন।

ভোরে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রশাসন ভবনসহ বিভিন্ন ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৭টায় বিভিন্ন আবাসিক হল, ইনস্টিটিউট, বিভাগ, অন্যান্য পেশাজীবী এবং সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে সকাল সাড়ে ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে গণকবর স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়।

পরে সকাল ১০টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল কর্তৃক প্রকাশিত ও হল প্রাধ্যক্ষ ড. রওশন জাহিদ সম্পাদিত ‘চিরঞ্জীব বজ্রকণ্ঠ’ শীর্ষক গ্রন্থের পাঠ উন্মোচন করা হয়। 

ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা ও অধ্যাপক, চৌধুরী জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. হাসিবুল আলম প্রধান বক্তৃতা করেন। সেখানে উপস্থিত অতিথিরা ‘চিরঞ্জীব বজ্রকণ্ঠ’ শীর্ষক গ্রন্থের পাঠ উন্মোচন  করেন।

এদিন বাদ জুম্মা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় বিশেষ মোনাজাত। বিকেল ৫টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে রাবি শহীদ পরিবার ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন ভিসি অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান। দিবসের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিলো সন্ধ্যা ৬টা ৪৫মিনিটে কেন্দ্রীয় মন্দিরে প্রার্থনা ও সন্ধ্যা ৭টায় কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য খোলা ছিল। এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি উদ্যাপন করে।

Read Entire Article