মোদিবিরোধী মিছিলে সংঘর্ষ: ৩০ জন রিমান্ডে

1 month ago 16

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে রাজধানীতে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ ও যুব অধিকার পরিষদের বিক্ষোভ মিছিলের সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের মামলায় গ্রেপ্তার করা ৩০ জনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আশিক নুর নামের এক আসামি অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তাকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইয়াসমিন আরার আদালত শুনানি শেষে রিমান্ডের আদেশ দেন।

রিমান্ডে যাওয়া আসামিদের মধ্যে আছেন—জাহিদ, ইউনুস, নাজমুল হাসান, নাহিদ উল তারেক, লিমন ফকির, সালাহউদ্দিন, নাঈম, আরিয়ান রিপন, আব্দুর রউফ, আসাদুজ্জামান, আজাহারুল ইসলাম, মোস্তাক আহমেদ, মিজানুর রহমান, সোহেল মৃধা, আজিম হোসেন, আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, সোহেল, খায়রুল কবির, ফরিদ, সবুজ হোসেন, গোলাম তানভীর, হেমায়েত, মেহেদী হাসান, ইসমাইল, রেজাউল করিম, মোন্তাজুল,  কাজী মাহমুদ, মাহমুদুল হাসান ও রুহুল আমিন।

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মতিঝিল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সফিকুল ইসলাম আকন্দ আসামিদের আদালতে হাজির করে প্রত্যেকের ১০ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন।

আসমিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, খাদেমুল ইসলাম ও তৌফিক শাহরিয়ার রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ এর বিরোধিতা করে।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে প্রত্যেকের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) দিবাগত রাতে মতিঝিল থানায় ৫১ জনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন সংশ্লিষ্ট থানার এসআই মিন্টু কুমার।

জানা গেছে, নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর মতিঝিল শাপলা চত্বরে ছাত্র ও যুব অধিকার পরিষদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। এতে অন্যান্য সংগঠনের নেতাকর্মীরাও অংশ নেন।

পুলিশ মিছিলের গতি রোধ করতে চাইলে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার শেল ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে। মিছিলকারীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে।

Read Entire Article