ব্যক্তিগত টিউবওয়েলে প্রকল্পের ফলক সাঁটিয়ে টাকা আত্মসাৎ

2 months ago 50

ব্যক্তি মালিকানাধীন টিউবওয়েলে প্রকল্পের ফলক

ব্যক্তি মালিকানাধীন টিউবওয়েলে প্রকল্পের ফলক

পাঁচ বছর আগে গ্রামীণ সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে বাড়িতে টিউবওয়েল বসিয়েছেন ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার সাখুয়া ইউনিয়নের দিনমজুর রইছ উদ্দিন। সম্প্রতি ওই টিউবওয়েলে সরকারি প্রকল্প এলজিএসপি-৩ এর ফলক সাঁটিয়েছেন ইউনিয়নের মেম্বার আবুল কালাম। শুধু রইছ উদ্দিন নয়, আরো তিনজনের ব্যক্তিগত টিউবওয়েলে ফলক সাঁটিয়ে অভিনব কায়দায় প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করেছেন তিনি।

এ ঘটনায় ওই মেম্বারের বিরুদ্ধে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন এক ভুক্তভোগী। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে অভিযোগকারীকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছেন অভিযুক্ত মেম্বার আবুল কালাম।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চার বছর আগে সরকারি টিউবওয়েলের জন্য ১০ হাজার টাকা বরাদ্দ পেয়েছিলেন সাখুয়া ইউনিয়নের আখরাইল নামাপাড়া গ্রামের কাজল মিয়া, আলাল উদ্দিন, আসাদুল ইসলামসহ কয়েকজন। সেই বরাদ্দ না পেয়ে সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে নিজ বাড়িতে টিউবওয়েল বসিয়েছেন দিনমজুর রইছ। মাস দেড়েক আগে রইছ উদ্দিনের টিউবওয়েলসহ বেশ কয়েকটি পুরাতন টিউবওয়েলে এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের ফলক সাঁটিয়ে দেন ওই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আবুল কালাম। কারণ জানতে চাইলে ওই মেম্বার রইছ উদ্দিনকে জানান- সরকারি বরাদ্দ আসবে। এ কারণে ফলক সাঁটানো হয়েছে। পরে তারা জানতে পারেন, এলজিএসপি-৪ প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যেই তাদের টিউবওয়েলে ফলক সাঁটিয়েছেন মেম্বার।

১ মার্চ ইউপি মেম্বার আবুল কালামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি নিয়ে ত্রিশালের ইউএনও মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন কাজল মিয়া, আলাল উদ্দিন ও রইছ উদ্দিন। একই সঙ্গে বিষয়টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ গোলাম ইয়াহিয়াকেও জানান তারা। অভিযোগের ২৩ দিন পার হলেও চেয়ারম্যান কিংবা উপজেলা প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেননি বলে জানিয়েছেন অভিযোগকারীরা।

এদিকে ইউএনওর কাছে অভিযোগ করায় ক্ষুব্ধ হয়ে কাজল মিয়াকে একটি মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছেন অভিযুক্ত মেম্বার আবুল কালাম। মামলার কারণে গত কয়েকদিন বাড়ি ছাড়া কাজল মিয়া।

স্থানীয় ব্যবসায়ী শাহাবুদ্দিন জানান, মেম্বারের সঙ্গে মাজিদ পাগলার মারামারি হয়েছে। ঘটনাস্থলে কাজল মিয়া ছিলনা। হয়রানি করতেই মামলায় তার নাম দেয়া হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে,  আখরাইল নামাপাড়া গ্রামের কয়েকটি পুরোনো টিউবওয়েলে নতুন করে এলজিএসপি-৩ এর ফলক লাগানো হয়েছে। ফলকে লেখা- এলজিএসপি-৩, অর্থবছর-২০১৮-১৯, বাস্তবায়নকাল-২০২০-২১, প্রকল্প সভাপতি আবুল কালাম ইউপি সদস্য, উদ্বোধন করেন শাহ মোহাম্মদ গোলাম ইয়াহিয়া, চেয়ারম্যান ৮ নম্বর সাখুয়া ইউপি।

অভিযুক্ত মেম্বার আবুল কালাম বলেন, ফলকগুলো আমি এমনিতেই লাগিয়ে ছিলাম। খুলে ফেলব। এটা এলজিএসপি প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের কোন ঘটনা নয়। আমাকে মারধরের ঘটনায় কাজল জড়িত।

৮ নম্বর সাখুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ গোলাম ইয়াহিয়া বলেন, মেম্বার সাহেব কি কারণে পুরোনো টিউবওয়েলে এলজিএসপি প্রকল্পের ফলক লাগিয়েছে তা জানা নেই। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ত্রিশালের ইউএনও মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযোগ পেয়েছি অনেক আগে। বিভিন্ন ঝামেলার কারনে খোঁজ নেয়ার সুযোগ হয়নি। সরেজমিন পরিদর্শন করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Read Entire Article