‘ধন্যবাদ’ জানিয়ে বাংলায় মোদির টুইট

1 month ago 26

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দিতে তার জন্য আয়োজিত সংবর্ধনা সভায় জনতার উদ্দেশ্যে হাত নাড়েন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি - পিআইডি

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দিতে তার জন্য আয়োজিত সংবর্ধনা সভায় জনতার উদ্দেশ্যে হাত নাড়েন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি - পিআইডি

দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে শনিবার রাতে দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ঢাকা ছাড়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বাংলায় টুইট করেছেন তিনি।

শনিবার রাত ৮টা ৫১ মিনিটে মোদি তার ব্যক্তিগত টুইট অ্যাকাউন্টে লেখেন, ‘আমার সফরকালে বাংলাদেশের জনগণ যে আন্তরিকতা দেখিয়েছে তার জন্য আমি তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাই। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও তাঁর উষ্ণ আতিথেয়তার জন্য ধন্যবাদ জানাই। আমার বিশ্বাস, এই সফর আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করবে।’  

ঢাকা ছাড়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বাংলায় টুইট করেছেন নরেন্দ্র মোদি

রাত সাড়ে ৯টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে বহনকারী একটি বিশেষ বিমান দিল্লির উদ্দেশ্যে উড্ডয়ন করে। বিমানবন্দরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন তাকে বিদায় জানান। 

এর আগে শুক্রবার সকালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ঢাকায় পৌঁছান নরেন্দ্র মোদি। বিমানবন্দরে তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে অভ্যর্থনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর ভারত ও বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। পরে তিন বাহিনীর চৌকস দলের পক্ষ থেকে নরেন্দ্র মোদিকে গার্ড অব অনার এবং লালগালিচা সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। বিমানবন্দর থেকে তিনি সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এরপর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান। বিকেলে তিনি জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে যোগ দেন। 

শনিবার সকালে হেলিকপ্টারযোগে তিনি সাতক্ষীরার শ্যামনগরে যান। সেখানে তিনি সাড়ে ৪০০ বছরের পুরনো ঐতিহাসিক যশোরেশ্বরী কালীমন্দির পরিদর্শন ও পূজা-অর্চনা করেন। একইসঙ্গে তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সেখান থেকে তিনি গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় যান। সেখানে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে যান কাশিয়ানীর ওড়াকান্দিতে। সেখানে হরিচাঁদ ঠাকুরের বাড়িতে শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের মন্দিরে পূজা-অর্চনা শেষে তিনি মতুয়া প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। 

শনিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পাঁচটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। এছাড়া বৈঠকে কয়েকটি প্রকল্প উদ্বোধন করা হয়। এসময় ভারতের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ১০৯টি অ্যাম্বুলেন্স ও ১২ লাখ করোনা টিকা উপহার হিসেবে হস্তান্তর করেন নরেন্দ্র মোদি। বৈঠকে দুই সরকার প্রধান স্বাস্থ্য, বাণিজ্য, সংযোগ, শক্তি, উন্নয়ন সহযোগিতা এবং আরো অনেক ক্ষেত্রে অর্জনের অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করেন।

Read Entire Article