দুই বন্ধুর পাহারায় শারীরিক সম্পর্ক, বিয়ের চাপ দিতেই পালাল প্রেমিক

2 months ago 39

নওগাঁর নিয়ামতপুরে বিয়ের প্রলোভনে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ১ মার্চ ওই উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের নান্দাগড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আসামিরা হলেন- ওই গ্রামের ইমারতের ছেলে কাওছার, মুছুর আলীর ছেলে সায়েম ইকবাল, চাকলা গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে আল মামুন সাদ্দাম। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ওই ছাত্রী স্থানীয় একটি স্কুলে দশম শ্রেণিতে পড়ত। তার বাড়ির আশপাশে ঘোরাঘুরি করত কাওছার, সায়েম ও সাদ্দাম। এক পর্যায়ে কাওছারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ওই ছাত্রীর। এরপর বিয়ের প্রলোভনে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে জড়ায় কাওছার। ১ মার্চ দুপুরে ওই ছাত্রীর মা বাড়িতে না থাকায় দুই বন্ধু সায়েম ও সাদ্দামকে বাইরে পাহারায় রেখে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয় কাওছার। ওই সময় ভুক্তভোগী ছাত্রী বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় পালিয়ে যায় সে। পরে বিষয়টি জানতে পেরে মামলা করেন ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা।

তিনি বলেন, আমরা দিন আনি- দিন খাই। সংসার চালাতে আমাদের প্রতিদিনই বাইরে কাজে যেতে হয়। সেদিনও কাজের জন্য বাইরে ছিলাম। সেই সুযোগে কাওছার আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে। আমি বাড়ি ফিরে দেখি সায়েম ও সাদ্দাম পাহারা দিচ্ছে। আমাকে দেখে তারা অপ্রস্তুত হয়ে পড়ে। এরপর ঘরে ঢুকে দেখি কাওছার আমার মেয়েকে ধর্ষণ করছে। ওই সময় আমাকে দেখে দ্রুত পালিয়ে যায় সে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মিলন কুমার সিংহ বলেন, আসামিরা পলাতক। তাদের গ্রেফতারে সব ধরনের চেষ্টা চলছে।

নিয়ামতপুর থানার ওসি হুমায়ুন কবীর বলেন, ঘটনার বেশ কিছুদিন পর মামলা হওয়ায় আসামিরা পালানোর সুযোগ পেয়েছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত।

Read Entire Article