ডেকে নিয়ে ধর্ষণ, মুখ খুললে হত্যার হুমকি

1 month ago 28

মাদারীপুরে কিশোরীকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এক মঠের সেবায়েতের বিরুদ্ধে। ধর্ষণের শিকার কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ায় অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের উত্তর কলাগাছিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আসামি টমেন ত্রিপুরা ওই গ্রামের নতুন প্রণব মঠের সেবায়েত। তিনি খাগড়াছড়ির উপেন্দ্র ওরফে পাটানর ত্রিপুরার ছেলে। শুক্রবার রাতে তার বিরুদ্ধে মামলা করেন ধর্ষণের শিকার কিশোরীর মা।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, টমেন ত্রিপুরা মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের উত্তর কলাগাছিয়া গ্রামের নতুন প্রণব মঠের মন্টু মহারাজের সেবায়েত ছিলেন। কাজের সুবিধার জন্য তিনি মঠের পাশের একটি টিনের ঘরে থাকতেন। মঠের পাশেই ওই কিশোরীর বাড়ি হওয়ায় সেখানে যাতায়াত ছিল টমেন ত্রিপুরার। গত মাসে তার রান্নার লোক ছুটিতে থাকায় ওই কিশোরীর মাকে রান্না করে দেয়ার কথা বলেন। তখন মায়ের কথায় টমেন ত্রিপুরাকে রান্না করে দেন ভুক্তভোগী কিশোরী।

আরো জানা গেছে, ৫ ফেব্রুয়ারি ওই কিশোরী রান্না করতে গেলে টমেন ত্রিপুরা তাকে জোরপূর্বক নিজের থাকার ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর ওই ঘটনা কাউকে জানালে তাকে ও তার পরিবারকে হত্যার হুমকি দেয়। সম্প্রতি ধর্ষণের শিকার কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে পরিবারের সদস্যরা পুরো ঘটনা জেনে যায়। পরে এলাকায় খবর ছড়িয়ে পড়লে টমেন ত্রিপুরা পালিয়ে যায়।

ধর্ষণের শিকার কিশোরীর মা বলেন, আমরা প্রথমে মামলা করতে সাহস পাইনি। নতুন প্রণব মঠের মন্টু মহারাজ ও ইউপি মেম্বার অমল ভক্তকে জানাই। তারা সালিসের আশ্বাস দিয়েও পরবর্তীতে কোনো পদক্ষেপ নেননি। দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর শুক্রবার রাতে মামলা করেছি। মামলা পর নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। জানিনা বিচার পাব কিনা, তাছাড়া আমার মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা। আমি টমেন ত্রিপুরার বিচার ও আমার মেয়ের ভবিষ্যতের নিশ্চয়তা চাই।

মাদারীপুর মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উপ-পরিচালক মাহমুদা আক্তার কণা বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। আমরা ওই অন্তঃসত্ত্বা কিশোরীর পাশে আছি। তাকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে।

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আরএমও ডা. মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম বলেন, শনিবার সকালে হাসপাতালে এক কিশোরীর প্রয়োজনীয় ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে।

মাদারীপুর সদর থানার ওসি মো. কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামি পলাতক থাকায় গ্রেফতার করা যাচ্ছে না। তাকে ধরতে অভিযান চলমান।

Read Entire Article