ই-কমার্স : ব্যবসায়িক প্রচারণায় কনটেন্ট মার্কেটিং

4 weeks ago 17

দিনবদলের এই যুগে যখন অনেক কিছুই সহজ তখন প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকা আরো বেশি কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। পণ্য/সেবার গুণগতমান বজায় রেখেও সময়মত সঠিক কৌশল অবলম্বন করতে না পারলে বাজারে টিকে থাকা সম্ভব নয়। সেজন্য উদ্যোক্তাদের উচিত নতুন দিনের ভাবনায় সিদ্ধহস্ত হওয়া। বর্তমান ভাবনার পাশাপাশি ভবিষ্যতের ব্যবসায়িক উপায় এবং কৌশলগুলো কীভাবে ঠিক করতে হবে তা মাথায় রাখা জরুরি।

কনটেন্ট মার্কেটিং কী?
সহজ ভাষায়, কনটেন্টের মাধ্যমে মার্কেটিংয়ের যে পন্থা অবলম্বন করা হয় তা-ই কনটেন্ট মার্কেটিং। ব্যাপারটা শুনতে সহজ মনে হলেও ততটা সহজ নয়। মার্কেটিং সম্পর্কে সবার ধারণা থাকলেও কনটেন্ট মার্কেটিং সম্পর্কে মানুষের মনে একধরনের দ্বিধাদ্বন্দ কাজ করে। কনটেন্টের শাব্দিক অর্থ হচ্ছে বিষয়বস্তু। অডিও, ভিডিও, আর্টিকেল/ফিচার, ছবি কিংবা স্লাইড শোর মাধ্যমে দর্শকদের কাছে তথ্যমূলক/অনুপ্রেরণামূলক গল্প পৌঁছে দিয়ে নিজেদের ব্র্যান্ডের প্রতি আর্কষণ করাই হচ্ছে কনটেন্ট মার্কেটিং।

কনটেন্ট মার্কেটিংয়ের মাধ্যমসমূহ…

ব্লগসাইট : সবচাইতে সহজ আর সাশ্রয়ী মাধ্যম হচ্ছে ব্লগ লেখা। নিজেদের ওয়েবসাইটে কিংবা আলাদা সাইটগুলোতে পণ্যের বিষয়বস্তু থেকে শুরু করে সবধরনের বিস্তারিত আলোচনা লেখা থাকে, যা দেখে পাঠকরা সহজেই পণ্য/সেবা সম্পর্কে ধারণা পায়। এক্ষেত্রে ফিচার/আর্টিকেল, তথ্যসংক্রান্ত নোট বা ছোট অণুগল্প লেখা যেতে পারে যা পাঠকদের আকৃষ্ট করে।

সোশ্যাল মিডিয়া : সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। আমাদের দেশের মোট জনসংখ্যার উল্লেখযোগ্য একটি অংশ বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। আপনার যদি ফেসবুকে একটি পেইজ থাকে তাহলে আপনার ব্যবসায়ের কন্টেন্ট প্রচার করা অনেক বেশি সহজ হয়ে উঠবে যা দ্রুততম সময়ের মধ্যে অনেকের কাছে পৌঁছানো সম্ভব।

ই-মেইল মার্কেটিং : কনটেন্ট মার্কেটিংয়ের ক্ষেত্রে ই-মেইলে প্রচারণা বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। আপনার পণ্য/সেবার বিভিন্ন অফার ও ক্যাম্পেইনসহ নানা ধরনের তথ্য গ্রাহকদের ই-মেইলে জানাতে পারেন। গ্রাহকরা সবসময় সেবা না নিলেও, ব্যবসায়িক সাইটের যাবতীয় খবর থাকবে তাদের নখদর্পনে।

ভিডিও কনটেন্ট : কেও ব্লগ পড়তে পছন্দ করে, কেও করে না। তবে ভিডিও দেখতে পছন্দ করে না এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। ভিডিওটি যদি তথ্যবহুল ও আকর্ষণীয় হয় তাহলে সেটি দেখতে এবং অন্যের সঙ্গে শেয়ার করতে যে কেও আগ্রহ বোধ করেন। এতে করে দ্রুত অনেকের কাছে প্রচারণা পৌঁছে দেওয়া সহজ হয়ে যায়। ভিডিও কনটেন্ট তাই খুব বেশি জনপ্রিয়।

পডকাস্ট : সহজ ভাষায় বললে এটি হচ্ছে রেডিও-র ডিজিটাল রূপ। চলন্ত পথে কিংবা অবসর সময়ে বসে অনেকেই পডকাস্টের মাধ্যমে বিভিন্ন অনুষ্ঠান, খবর শুনতে পছন্দ করেন। এসব অনুষ্ঠানের মধ্যেই পণ্য/সেবা নিয়ে আলোচনা কিংবা ব্যবসায়ের প্রচারণা চালানো যায় তাহলে পডকাস্ট হয়ে উঠতে পারে অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম।

রিভিউ : গ্রাহকরা এখন অনেক সচেতন। অনলাইন থেকে কিছু কেনার আগে সম্পূর্ণ আইডিয়া নিয়ে এবং অন্যের অভিজ্ঞতা শুনে এগোতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন তারা। তাই পেজ কিংবা ওয়েবসাইটে পণ্য/সেবা সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ রিভিউ ই-কমার্সের গ্রাহক বাড়াতে অনেকাংশেই সক্ষম।

পরিশেষে, ব্যবসায়িক প্রসারে কন্টেন্ট মার্কেটিংয়ের বিকল্প নেই। এ বিষয়ে যত বেশি পড়ালেখা করা যাবে ততবেশি জানা যাবে এবং প্রয়োগ করা যাবে। কন্টেন্ট মার্কেটিং নিয়ে সফল হওয়া গেলে ই-কমার্সে অনেকদূর এগিয়ে যাওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র।

Read Entire Article