অলৌকিক!

3 months ago 62

বগুড়ার আদমদীঘিতে জেসমিন আক্তার নামে ১০ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী অলৌকিকভাবে মেয়ে থেকে ছেলে হওয়ায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। 

পুরুষে রূপান্তরিত হওয়ার পর তার নাম রাখা হয়েছে জুবায়েদ মন্ডল। আদমদীঘি উপজেলার লক্ষিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার ঘটনাটি জানাজানি হলে কৌতূহলি জনতা তাকে দেখতে ভিড় জমায়।

আদমদীঘি নসরৎপুর ইউপির লক্ষিপুর গ্রামের কৃষক জালাল হোসেন স্ত্রী মরিয়মের গর্ভে অনাগত সন্তান রেখে বিদেশে যান। ২০২১ সালে জেসমিন আক্তার ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর থেকে নানা-নানির বাড়ি উপজেলার শাওইলে বসবাস করতেন। সেখানে জেসমিন আক্তার বড় হয়। শাওইল দ্বীমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণিতে লেখাপড়া করেন। গত দুই বছর আগে তার বাবা বিদেশ থেকে বাড়িতে এসে কৃষি কাজ করতেন আর তাদের সংসারে এক মেয়ে এক ছেলে ছিলো। বড় মেয়ে জেসমিন আক্তারকে পারিবারিক ভাবে বিয়ে দেয়ার কথা ভাবছিলেন। এদিকে গত চার মাস আগে জেসমিন আক্তারের কন্ঠস্বর বদলে যেতে শুরু করে। ছেলেদের মতো কন্ঠস্বর হতে থাকে। তার পর থেকে তার আচার-আচরণ ছেলেদের মতো হতে থাকে। ৪৫ দিনের মাথায় জেসমিন আক্তারের শারীরিক গঠন পরিবর্তন হয়ে ছেলেতে রূপান্তরিত হন। এ ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে কৌতূহলী জনতা তাকে দেখতে তাদের বাড়িতে প্রতিদিন ভিড় জমাচ্ছেন। 

জেসমিন আক্তার বলেন, আমি লেখাপড়ার পাশাপাশি নামাজ রোজা ও তাহাজ্জুতের নামাজ পড়তাম। প্রথমে তেমন কিছু মনে হয়নি। তিন মাস আগে হঠাৎ একদিন আমার গায়ে জ্বর আসে। এরপর থেকে মেয়ে থেকে ছেলেতে রূপান্তরিত হই এখন আমার নাম জুবায়েদ মন্ডল। এখন আমি পূর্ণাঙ্গ পুরুষ হিসেবে সুস্থ।

জেসমিনের বাবা জালাল হোসেন মন্ডল সাংবাদিকদের জানায়, আমার বড় মেয়েটি ছেলেতে রূপান্তরিত হওয়ায় তার নাম রেখেছি জুবায়েদ মন্ডল। আমি অনেক খুসি হয়েছি মহান আল্লাহতালার কাছে। 

Read Entire Article